২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

বন্ধুকে অপহরণ করে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি, যুবক গ্রেপ্তার

আপডেট: ডিসেম্বর ১৬, ২০২৩

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় অপহরণের ১২ ঘণ্টা মধ্যে রিপন (২০) নামে এক যুবককে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সৈকত শেখ (২০) নামে তার এক বন্ধুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৫ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার বড় পাঙ্গাসী এলাকার একটি পরিত্যক্ত বাড়ির কাছ থেকে হাত-পা বাঁধা ও মুখে কসটেপ লাগানো অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়। এর আগে সৈকত সেখকে আটক করা হয়।

সৈকত উল্লাপাড়া উপজেলার বড় পাঙ্গাসী গ্রামের মৃত মান্নান শেখের ছেলে। ভিকটিম রিপন একই এলাকার জুলহক প্রামাণিকের ছেলে।

শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) বিকেলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, শুক্রবার সকালে ভিকটিম রিপনের বড় ভাই থানায় একটি অভিযোগে বলে তার ছোট ভাই রিপনকে অপহরণ করা হয়েছে এবং অপহরণকারীরা ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করছে। অভিযোগটি আমলে নিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিযান চালিয়ে সৈকতকে আটক করা হয়। পরে সৈকতের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ ফোর্স নিয়ে বড়পাঙ্গাসী গ্রামের আব্দুল হালিমের পরিত্যক্ত বাড়ির কাছে হাত-পা বাঁধা ও মুখে কসটেপ লাগানো অবস্থায় রিপনকে উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, ভিকটিম রিপন ও আসামি সৈকত দুজন বন্ধু। এ সুবাদে বৃহস্পতিবার (১৪ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে আসামি সৈকত তার বন্ধু রিপনকে ফোন করে বড় পাঙ্গাসী স্কুল মাঠে নিয়ে যায়। রাত ১০টার দিকে পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক আটক আসামি সৈকতসহ রিপনের আরও কয়েকজন বন্ধু মিলে তাকে মারপিট করে হাত-পা ও মুখ বেঁধে পরিত্যক্ত ওই জায়গায় ফেলে রাখে। পরে রিপনের মোবাইল ফোন দিয়েই তার বাড়িতে কল দিয়ে ৩০ লাখ টাকার মুক্তিপণ দাবি করা হয়। মুক্তিপণ না পেলে রিপনের মরদেও খুঁজে পাবে না বলে হুমকি দেয় অপহরণকারীরা

ওসি জানান, রিপনের বড় ভাই নাসির কয়েকদিন আগে ইটালি থেকে বাড়িতে এসেছে। তার ভাইয়ের কাছ থেকে টাকা আদায় করতেই রিপনকে অপহরণ করা হয়েছিল। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর আসামিকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যান্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network